Translate

প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের বাধ্যতামূলক হচ্ছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়


  1. প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের বাধ্যতামূলক হচ্ছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়


ডেস্ক রিপোর্টঃ
ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণির পর এবার প্রাথমিক স্তরেও বাধ্যতামূলক হচ্ছে আইসিটি শিক্ষা। সম্প্রতি রাজধানীতে পৃথক দুটি অনুষ্ঠানে এ সংক্রান্ত ঘোষণা দেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার ও প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

জানা যায়, অল্প সময়ের মধ্যেই সারা দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে আইসিটি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হবে। এ বিষয়ে মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, দেশের শিক্ষা পদ্ধতিকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার উপযোগী করতে হলে অবশ্যই প্রাথমিক পর্যায় থেকে তথ্যপ্রযুক্তি (আইসিটি) সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের ধারণা পেতে হবে।

তিনি আরো বলেন, অনেক প্রচেষ্টার পর ২০১২ সালে ষষ্ঠ শ্রেণিতে আইসিটি বিষয়টি বাধ্যতামূলক করে সরকার। পর্যায়ক্রমে তা দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত বাধ্যতামূলক করা হয়। এর আগে ওই শ্রেণিগুলোতে পাঠ্যবইয়ের তালিকায় কম্পিউটার শিক্ষা নামে একটি ঐচ্ছিক বিষয় ছিল।

এদিকে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, আমাদের শিশুরা যেন তাদের শৈশব থেকেই আইসিটির সাথে পরিচয় লাভ করতে পারে এবং নিজেদেরকে গড়ে তুলতে পারে, এ জন্যই প্রাথমিকে আইসিটি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে দ্বাদশ পযর্ন্ত বাধ্যতামূলক রয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ভাই বলেছেন, আগামী অল্প দিনের মধ্যেই আইসিটিকে প্রাথমিক বিদ্যালয় পযর্ন্ত বাধ্যতামূলক করতে চাই।

প্রসঙ্গত, জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০ এর আলোকে ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ২০১২ শিক্ষাবর্ষ থেকে ষষ্ঠ শ্রেণিতে, ২০১৩ শিক্ষাবর্ষ থেকে সপ্তম শ্রেণিতে ও ২০১৪ শিক্ষাবর্ষ থেকে অষ্টম শ্রেণিতে, ২০১৫ শিক্ষাবর্ষ থেকে নবম শ্রেণিতে ও ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষ থেকে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণিতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নামক নতুন বিষয়কে অন্তর্ভুক্ত ও বাধ্যতামূলকভাবে পাঠ্য করা হয়। মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষা ও বিজ্ঞান তিন বিভাগেই বিষয়টি বাধ্যতামূলক।

তথ্যসূত্রঃ শিক্ষাবার্তা।১৭/০১/১৮

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য