Translate

এসএমপিএল ক্রিকেট টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন সিদ্দিকীয়া টাইটানস ১৭

মিনহাজুল ইসলাম নিশান, শিশুবার্তা প্রতিনিধি জয়পুরহাটঃ

জয়পুরহাট জেলার অন্নতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জয়পুরহাট সিদ্দিকীয়া কামিল (এম এ) মডেল মাদ্রাসার প্রাপ্তন শিক্ষার্থীদের আয়োজনে সিদ্দিকীয়া মাদ্রাসা প্রিমিয়ার লিগ ২০১৯,সিজন-২ এর ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রবিবার বিকেল ৪ টা ৩০ মিনিটে শহরের সার্কিট হাউজ মাঠে এ ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

ফাইনাল ম্যাচে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন জয়পুরহাট পৌরসভার মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রভাষক এ ই এম মাসুদ রেজা সদস্য, বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা, রাজশাহী। এবং মোঃ তাসকিন রহমান বিশিষ্ট ব্যবসায়ী,জয়পুরহাট।

সভাপতিত্ব করেন জয়পুরহাট সিদ্দিকীয়া কামিল (এম,এ) মডেল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আব্দুল মতিন।

উক্ত ফাইনাল ম্যাচে সিদ্দিকীয়া টাইটানস ১৭ টিম ১০ ওভারে ১৫৩ রানের টার্গেট দেয় বিপক্ষ টিম সিদ্দিকীয়া সুপারজায়েন্টস ১৬ কে। বিশাল এ টার্গেট তারা করতে নেমে সিদ্দিকীয়া সুপারজায়েন্টস ৬ উইকেট হারিয়ে ১০ ওভারে শেষে সংগ্রহ করে মাত্র ৭১ রান। ৮২ রানের ব্যাপক ব্যবধানে এসএমপিএল  সিজন -২ চ্যাম্পিয়ন হয় সিদ্দিকীয়া টাইটানস ১৭।

এসময় প্রভাষক  এ ই এম মাসুদ রেজা বলেন ঈদ উপলক্ষে জয়পুরহাটে এসএমপিএল সহ এরকম ৮ টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আয়োজন হয়েছে। এতে প্রায় ৫ হাজার প্রাপ্তন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেছে।এসব টুর্নামেন্ট তরুণ সমাজকে মাদক ও অপরাধ থেকে দূরে রাখবে।আমি চাই এই আয়োজনের ধারাবাহিকতা বজায় থাকুক।

উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ ও অনুষ্ঠানের সভাপতি আঃ মতিন বলেন ঈদ উপলক্ষে জয়পুরহাটের প্রধান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোর প্রাপ্তন ছাত্রদের এমন আয়োজন জয়পুরহাটে এক অন্যরকম উৎসবের সৃষ্টি করেছে।যা সত্যি প্রশংসনীয়।

চ্যাম্পিয়ন টিমের  রিফাত সানজিদ সিহাব ও আবিদ ইাকবাল বলেন হার জিত বড় কথা নয়। বড়ভাই ছোটভাই  সবাই একসাথে অনেক আনন্দ করেছি এটাই মূলকথা।

আয়োজক কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান বলেন সিনিয়র জুনিয়রদের মধ্যে জেনারেশন গ্যাপ দূর করা ও সকলের মধ্যে সুসম্পর্ক স্থাপন করাই আমাদের মূল লক্ষ। ইনশাআল্লাহ আগামীতে এর ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে।

অনুষ্ঠানের শেষাংশে অতিথিবৃন্দ চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ দলকে ট্রফি মেডেল ও প্রাইজমানি প্রদান করেন।

উল্লেখ ঈদের ২য় দিন থেকে শুরু হওয়া এই টুর্নামেন্টে উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রাপ্তন ১০ টি ব্যাচের ১০ টিমে প্রায় ১৬০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য