Translate

পায়ে লিখে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করল সিরাজগঞ্জের নিলা

নাজমুল হাসান অনিক, সিরাজগঞ্জঃ

হাত ছাড়া মানুষ লিখতে পারেনা, লেখাপড়া থেকে ছিটকে যায়। তবে কেউ কেউ আছে তার অদম্য অধ্যাবসায় ও ইচ্ছাশক্তির জেড়ে যেকোন অসম্ভব কাজকে সম্ভব করতে পারে। একরম এক উজ্জ্বল নক্ষত্রের খোজ পাওয়া গেছে সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার বড়ধুল গ্রামের ওসমান গণীর মেয়ে নিলা খাতুনের মধ্যে।

একটি হাত নেই আর একটি হাত থেকেও অকেজো হওয়ায় পা দিয়ে লিখে উপজেলার বরধুল মাদ্রাসা থেকে ২০১৭ সালে ৩.৭০ পেয়ে দাখিল ও ২০১৯ সালে কামারখন্দ ফাযিল মাদ্রাসা থেকে ৩.৮৬ আলিম পাশ করেছেন।।।

তার সহপাঠীরা জানান, নিলা হাত না থাকায় পা দিয়ে পরিক্ষা দিত। যখন পরীক্ষা দিচ্ছিলো নিলাকে দেখে মনে হয়েছিলো স্বাভাবিকভাবে পরিক্ষা দিয়ে চলেছে। তার এ অদম্য ইচ্ছা দেখে মনে হয়েছে আমাদের চেয়ে সে অনেক ভালো পরিক্ষা দিয়েছে। তার ভালো ফলাফল দেখে আমরা সবাই খুশি। তার সাথে পরিক্ষা দিয়ে আমরা গর্ববোধ করছি।

নিলার বাবা ওসমান গণী জানান, ফলাফল দেখে অনেক আনন্দিত, তবে রয়েছে নানা দুশ্চিন্তাও। আমি কৃষি কাজ করে দুইটা ছেলেকে মার্টাস পাশ করিয়েছি এখন তারা বেকার। আর একটা ছোট ছেলে ৮ম শ্রেণীতে পড়ালেখা করাছি আর কৃষি কাজ করে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছি। এর মধ্যে নিলার লেখাপড়া কত দূর চালিয়ে নিতে পারব, আল্লাহই জানেন। হয়ত টাকার অভাবে পড়াতেই পারব না।

নিলা জানান, আমি সকল বাধা অতিক্রম করে মানুষের মতো মানুষ হতে চাই। পরিবার ও দেশের বোঝা না হয়ে বরং মানুষের সেবা করতে চাই পাশাপাশি এ পর্যন্ত পৌঁছতে পেরে সব শিক্ষক, বাবা-মা, সহপাঠী, সহযোগীদের প্রতি চির কৃতজ্ঞ। আমাকে সাহায্যেরর জন্য সরকারের কাছে আকুল আবেদন জানাচ্ছি। তাছাড়া আমার স্বপ্ন অপূর্ণই রয়ে যাবে।

এ বিষয়ে ইউএনও জাহাঙ্গীর আলম জানান, নিলার এই অদম্য গুণের কথা উপজেলা প্রশাসনের অজানা ছিল। তার পরিবারকে একটা আবেদন করলেই, নিলাকে সরকারী সব ধরনের সুযোগ সুবিধা দেওয়া হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ