Translate

জন্ম নিবন্ধন শিশুর অধিকার (সংগৃহীত )




মো. নজরুল ইসরাম






‘এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাব আমি- নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।’
কবি সুকান্তের “ছাড়পত্র” কবিতাটির সেই প্রত্যয়ী লাইনগুলো মনে পড়ছে।
শিশু জাতি গঠনের মূল ভিত্তি। শিশুরা হচ্ছে একটি জাতির সম্ভাবনাময় ভবিষ্যত। আশা আকাক্সক্ষার প্রতীক। শিশুর জন্য পরিবার, শিশুর জন্ম নিবন্ধনের অধিকার রাষ্ট্র ব্যবস্থার একটি সময়োপোযোগী গুরুত্ববহ সংলাপ। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানে শিশুর জন্য মৌলিক অধিকার সন্নিবেশিত রয়েছে। ১৯৯০ সালে জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদে অনুসমর্থনকারী প্রথম রাষ্ট্র সমূহের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম।
প্রসঙ্গক্রমে শিশু বলতে ১৮ বছরের কম বয়সী সকল ব্যক্তিকে বুঝবো।
মানব শিশুর জন্ম, তার লালন-পালন, প্রাথমিক শিক্ষা, বয়োবৃদ্ধি, ব্যক্তিত্বের গড়ন এবং সামাজিক কর্মকা-ের অধিকাংশই পরিবারকে কেন্দ্র করেই পরিচালিত হয়। পরিবারের সঙ্গে শিশুর সম্পর্ক অকৃত্রিম, আন্তরিক এবং অবিচ্ছেদ্য।
পরিবার সমাজের প্রাথমিক সংগঠন এবং এর সকল সদস্য বিশেষ করে শিশুদের বিকাশ ও কল্যাণের অধিকারের স্বাভাবিক পরিবেশ তাকে প্রয়োজনীয় সুরক্ষা ও সহায়তা দিতে হবে যাতে সমাজ অভ্যন্তরে সে তার দায়িত্ব সমূহ পুরোপুরি গ্রহণ করতে পারে।
শিশু অধিকারের ধারণা সামাজিক অধিকারের ধারণা হতে উৎপত্তি লাভ করেছে। অধিকার সমাজ বহির্ভুত বা সমাজ নিরপেক্ষ কিছুই নয়; এটা সমাজভিত্তিক। সামাজিক কল্যাণের মধ্যেই অধিকারের তাৎপর্য নিহিত রয়েছে।
অধিকার হল সমাজ জীবনের সেই সকল অবস্থা যা ব্যতিত মানুষ তার ব্যক্তিত্বের পরিপূর্ণ উপলব্ধি করতে পারে না।
শিশুদের ব্যক্তিত্বের পূর্ণ ও সুষম বিকাশের স্বার্থে আনন্দ, ভালবাসা ও সমঝোতাপূর্ণ পারিবারিক পরিবেশে তাকে বেড়ে উঠতে দিতে হবে। এ ব্যাপারে আস্থাশীল হয়ে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার বিভাগ এবং ইউনিসেফ বাংলাদেশ সহযোগিতায় শিশুর জন্ম নিবন্ধনের অধিকার বিষয়ক সনদ বাস্তবায়ন করছে। জন্ম নিবন্ধন প্রতিটি শিশুরই জন্মগত অধিকার।
অতএব, একটি নবজাত শিশুর জন্মের তারিখ ও স্থান, তার নাম ও লিঙ্গ, এবং তার পিতামাতার নাম সরকারি জন্ম নিবন্ধক কর্তৃক লিপিবদ্ধ করাকে জন্ম নিবন্ধন বলে।
শিশু অধিকার সম্পর্কে ১৯২৪ সালের জেনেভা ঘোষণা ও ১৯৫৯ সালের ২০ নভেম্বর সাধারণ পরিষদে গৃহীত শিশু অধিকার ঘোষণায় শিশুদের প্রতি বিশেষ যতেœর কথা বর্ণিত হয়েছে।
শিশুর অধিকার সমুন্নতকরণ ও নিশ্চিতকরণের জন্য জন্ম নিবন্ধন অতীব জরুরি। আইনের সহযোগিতা ও সুবিধা পেতে হলে বয়স প্রমাণ করা প্রয়োজন। শিশু পাচার, বাল্য বিবাহ, শিশুশ্রম, যৌন কর্মে লিপ্ত শিশু ইত্যাদি ক্ষতিকর, ঝুঁকিপূর্ণ ও বেআইনি কাজ থেকে শিশুদের রক্ষা করার জন্য সঠিকভাবে বয়স নির্ধারণ অত্যাবশ্যক। জন্ম নিবন্ধন বয়স নির্ধারণে আইনগতভাবে গ্রহণযোগ্য প্রক্রিয়া। জন্ম নিবন্ধন ব্যতিত কোনো শিশুর বয়স প্রত্যয়ন করা অসম্ভব। এ ছাড়াও বিদেশে লেখাপড়া, চাকরি, চিকিৎসা বা অন্যান্য নানাকাজে জন্ম নিবন্ধন প্রয়োজন।
জাতিরসংঘ প্রণীত শিশু অধিকার সনদে পরিচ্ছেদ ১ এ ৭ ধারায় বলা হয়েছে-
(১) জন্মের অব্যবহিত পরেই শিশুকে নিবন্ধীকরণ করতে হবে এবং জন্ম থেকেই তার নামকরণ লাভের একটি জাতীয়তা অর্জনের এবং যতটা সম্ভব পিতামাতার পরিচয় জানবার ও তাদের হাতে প্রতিপালিত হওয়ার অধিকার থাকবে।
(২) অংশগ্রহণকারী রাষ্ট্র তাদের নিজস্ব জাতীয় আইন অনুসারে এবং শিশুর এই সকল অধিকার সমূহ বাস্তবায়ন করবে এবং এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় আন্তর্জাতিক দলিল সমূহ মেনে চলতে বাধ্য থাকবে, এর অন্যথা হলে শিশু রাষ্ট্রহীন হয়ে পড়বে।
(৩) শিশুর জাতীয়তা, নাম এবং পারিবারিক সম্পর্ক, আইনসঙ্গত পরিচিতি রক্ষায় শিশুর অধিকারের প্রশ্নটিকে অংশগ্রহণকারী রাষ্ট্র সংরক্ষণ করবে। সেখানে কোনো বেআইনি হস্তক্ষেপ করা চলবে না।
(৪) কোথাও কোনো শিশু তার নিজস্ব পরিচয় থেকে যদি আংশিক অথবা সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে বঞ্চিত হয় তাহলে অংশগ্রহণকারী রাষ্ট্রসমূহ যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সেই পরিচয় পুনঃপ্রতিষ্ঠার সহায়তা করবে এবং শিশুকে রক্ষার ব্যবস্থা করবে।
সমাজে স্বকীয় জীবন যাপনের জন্য শিশুকে পুরোপুরি প্রস্তুত করে তুলতে হবে। শিশুর শারীরিক ও মানসিক অপরিপক্কতার কারণে তার জন্মের আগে থেকে এবং পরে ও তার জন্যে চাই যথাযথ বৈধ রক্ষা ব্যবস্থাসহ বিশেষ নিরাপত্তা ও যতœ’- শিশু অধিকার সংক্রান্ত ঘোষণায় ব্যক্ত এ কথা চিন্তায় রেখে- শিশুর জন্য জন্ম নিবন্ধনের অধিকার, সকলের জন্য জন্ম নিবন্ধন এই স্লোগানকে সামনে রেখে সরকার ৩ জুলাই জন্ম নিবন্ধন দিবস ঘোষণা করেছেন।
জন্ম নিবন্ধন দিবসের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় অনূর্ধ্ব ১৮ বছরের সকল শিশুর বিনা ফি’ তে জন্ম নিবন্ধন। জন্ম নিবন্ধন করে দেশের নাগরিক হিসেবে নিজ অধিকার প্রতিষ্ঠা করি।
১৯৯৭ সালের আগে সারা দেশে শিশুর জন্ম নিবন্ধনের কার্যক্রম তেমন সক্রিয় ছিল না। সরকার সম্প্রতি শিশুর জন্য জন্ম নিবন্ধন নিশ্চিত করতে নানামুখি কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। শিশুর জন্ম নিবন্ধন কার্যক্রম স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের কাছে একটি মডেল হয়ে দাঁড়িয়েছে। ১৯৯৮ সালে শিশুর জন্ম নিবন্ধন কার্যক্রমকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়া হয়েছে। জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন- ২০০৪ অনুযায়ী জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যে শিশুর জন্ম নিবন্ধন অধিকার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের মাঠকর্মীগণ জন্ম তথ্য সংগ্রহ করে। গ্রামীণ এলাকায় ইউনিয়ন পরিষদ, শহর এলাকায় পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন এবং ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড শিশুর জন্ম নিবন্ধনের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত।
শিশুর জন্ম নিবন্ধনের বিকাশে বর্তমানে সরকার পিতা-মাতাদের তাদের শিশুদের জন্ম নিবন্ধন করাতে আরো বেশি উৎসাহিত করার এবং এই প্রক্রিয়াটি সহজ করার চেষ্টা করছে। যে উপায়ে সরকার এটি করছে তা হচ্ছে-
* জন্ম নিবন্ধকগণ এবং জন্ম নিবন্ধনের সাথে সংশ্লিষ্ট সরকারি, এনজিও কর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে;
* জন্ম নিবন্ধনের বিভিন্ন উপকরণ ডিজাইন ও প্রদানের ব্যবস্থা করে;
* জন্ম নিবন্ধনের বিভিন্ন সুবিধা সম্পর্কে পিতা-মাতাকে অবহিত করে;
* স্কুলে ভর্তির সময়, আদালতে মামলার ক্ষেত্রে, অথবা পাসপোর্ট পাওয়ার জন্য বয়স প্রমাণের একমাত্র উপায় হিসেবে জন্ম সনদপত্রকে তুলে ধরে।
সমাজ এবং রাষ্ট্রীয় বাস্তবতায় জন্ম নিবন্ধন প্রতিটি শিশুর জন্য জন্মগত অধিকার। সুতরাং শিশু ও সমাজের জন্য শিশু জন্ম নিবন্ধনের প্রশ্নে সুবিধাগুলো রয়েছে-
* শিশুদের নাগরিকত্ব অধিকার নিশ্চিত করতে।
* অল্প বয়সে বিয়ে রোধ করতে, বিশেষ করে মেয়েদের।
* শিশু অধিকার সংরক্ষণের আইনগত সহায়তা পেতে, স্কুলে ভর্তি, পাসপোর্ট পাওয়া, ভোটার তালিকায় নাম লেখানো, স্বাস্থ্য সেবা পাওয়া, বিবাহ নিবন্ধীকরণ করতে, সম্পত্তি বিক্রয় ও উত্তরাধিকার ঠিক করতে জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রয়োজন।
* শিশুশ্রম সহজে বন্ধ করতে।
* কিশোর বিচার ব্যবস্থায় শিশুদের ক্ষেত্রে বিশেষ আচরণ নিশ্চিত করতে।
* সঠিক জনসংখ্যা জানতে-যার মাধ্যমে স্বাস্থ্য, শিক্ষা ইত্যাদি বিভিন্ন সেবা পরিকল্পনা গ্রহণ করা সম্ভব হবে।
* বিভিন্ন উদ্দেশ্যে বয়স কমানো বাড়ানো রোধ করতে।
একথা আগামীকাল সূর্যোদয়ের মত সত্য যে, বাংলাদেশসহ সমগ্র বিশ্বে শিশুর জন্ম নিবন্ধন অধিকার ক্রমে সম্প্রসারিত হচ্ছে। শিশুর প্রতিপালন, জন্ম নিবন্ধন, শিক্ষাদান ও বিকাশের ব্যাপারে পিতামাতা এবং সমাজের সকলের অভিন্ন ও পবিত্র দায়িত্ব রয়েছে।
আসুন আমরা সরকারের সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হই এবং শিশুর জন্ম নিবন্ধন অধিকার নিশ্চিত করি। শিশুর সর্বোত্তম জন্ম নিবন্ধন অধিকার প্রতিষ্ঠা-ই হোক সকলের মূল চিন্তা।
আর গণসচেতনতা গড়ে তুলি-
সর্বজনিন জন্ম নিবন্ধন
শিশুর জন্ম নিবন্ধন অধিকার
প্রতিটি শিশুরই জন্মগত অধিকার।
লেখক: সহকারী অধ্যাপক ও টিউটর, বাউবি

সংগৃহীত








একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য