Translate

সিরাজগঞ্জে শিশুদের বাল্যবিয়ে বিষয়ক লাইভ টকশো অনুষ্ঠিত


 শিশুদের লাইভ টকশো 
সাদিয়া ঈমাম শৈলী, সিরাজগঞ্জঃ
শিশু সাংবাদিকতার জন্য বিশেষায়িত পৃথিবীর প্রথম বাংলা ওয়েবসাইট হ্যালো ডট বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ও ইউনিসেফ এর যৌথ প্রযোজনায় সিরাজগঞ্জে শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণে আন্তর্জাতিক বাল্যবিবাহ নিরোধ দিবসে ‘বাল্যবিয়ে’ শীর্ষক একটি লাইভ টকশো অনুষ্ঠিত হয়েছে।
১৩ অক্টোবর ২০১৯ রবিবার বেলা ৩ টায় সিরাজগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাকক্ষে এ টকশো অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন  বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এর হ্যালো সেক্টরের নির্বাহী সম্পাদক সোলায়মান নিলয়।বিডিনিউজ২৪ এর সিরাজগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ইসরাইল হোসেন বাবু এবং শিশু সাংবাদিক ও শিশু অধিকার কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ফাহমিদা নিলুফার মনিষা ও নিবির সাহার সঞ্চলনায় বাল্যবিয়ে সম্পর্কে মতামত ও অভিজ্ঞতা প্রকাশ করের সিরাজগঞ্জের ৬ জন শিশু সাংবাদিক ও শিশু অধিকার কর্মী।  এসময় শিশুরা তাদের সমাজে বা নিজ এলাকায় ঘটে যাওয়া বাল্যবিয়ের ভয়াবহ পরিনতির অভিজ্ঞতাগুলো তুলে ধরেন। এসময় তারা আরও বলেন, বাল্যবিয়ে দেশের এগিয়ে চলার মুল বাধা। কিন্তু গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রার কয়েকটি উল্লেখ্য দিক হলো নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু মৃত্যু হার হ্রাস, মাতৃ মৃত্যুর হার হ্রাস। এসকল লক্ষ অর্জনের জন্য বাল্য বিয়ে মুল বাধা । তাই যেকোন মুল্যে বাল্যবিয়েকে নির্মূল করতে হবে ।

বাল্য বিয়ে নির্মূল করতে কিশোরীদের নিরাপত্তা, নির্বিঘ্নে তাদের শিক্ষা ও দক্ষতামূলক প্রশিক্ষণ এর ব্যাবস্থা করতে হবে। সমাজে সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি বাল্যবিয়ের বিরুদ্ধে একটি সানাজিক আন্দোন গড়ে তুলতে হবে।

শিশু সাংবাদিক সাদিয়া ঈমামা শৈলী তার বক্তব্যে বলেন, বাল্যবিয়ে এখন কিশোরীদের কাছে এক আতঙ্কের নাম। যা একটি কিশোরীর মানসিক ভাবে বেড়ে উঠতে নানাবিধ সমস্যার সৃষ্টি করে। তাই প্রতিটি পরিবারকে সচেতন হয়ে গড়ে উঠতে হবে । মেয়েদের বোঝা না মনে করে সম্পদ মনে করতে হবে । এবং শিশু সাংবাদিক নাজমুল হাসান অনিক তার অভিজ্ঞতা বিনিময় পর্বে তার সদ্যবিবাহিত নিজ সহপাঠির জীবনের কঠিন সমস্যা গুলোর কথা গল্পের মাধ্যমে তুলে ধরেন ।

বাল্যবিয়ে বন্ধ্যের জন্য কি পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে  এনং দর্শকদের আরও কিছু প্রশ্নের জবাবে শিশু সাংবাদিক ও শিশু অধিকার কর্মী দ্বীন মোহাম্মাদ সাব্বির বলেন, বাল্য বিয়ে বন্ধ করতে হলে প্রশাসনের সক্রিয় হতে হবে, পারিবারিক আও সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে , নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এবং সমাজের সেকেলে রীতিকে পরিবর্তন করে নতুন রিতী প্রবর্তন করে মেয়েরা যে বোঝা নয় বরং দেশের সম্পদ সে বিষয়টি সকলের মধ্যে গড়ে তুলতে হবে। সমাজে চলতে কিশোরীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে । এবং শিশুরা যদি বাল্য বিয়ের কোন খবর জানতে পারে সেক্ষেত্রে তারা নিজেরাও এটি বন্ধে প্রশাসনকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে পারে। এভাবে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় একদিন আমরা বাল্যবিয়ে মুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলতে পারব।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামীলিগের সাধারণ সম্পাদক শিউলি আক্তার। এবং চ্যানেল২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার ও বিশিষ্ঠ নাট্য ব্যাক্তিত্ব হীরক গুণ, আর টিভির জেলা প্রতিনিধি সুকান্ত সেন, ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি দিলীপ গৌড়, এবং মাওলানা ভাষানী ডিগ্রী কলেজের একজন মহিলা প্রভাষক উপস্থিত।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ