Translate

চলো গুজবে কান না দেই

www.shishubarta.com

চলো গুজবে কান না দেই

প্রিয়াংকা ভদ্র,সিরাজগঞ্জ:

“করোনা” হঠাৎ করেই পরিচিত হয়ে ওঠা এই শব্দটি মুহূর্তের মধ্যেই নিজের রাজত্ব সৃষ্টি করে ফেলেছে যখন সকল মিডিয়ার সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো করোনার খবর প্রকাশে ব্যস্ত তখন সেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ব্যবহার করে মানুষের মাঝে তৈরি করা হচ্ছে আতঙ্ক

যে মাধ্যমগুলো ব্যবহার করে চলছে মানুষকে সচেতন করার কাজ সেই মাধ্যমগুলো ব্যবহার করেই ছড়ানো হচ্ছে নানান ধরণের গুজব কোনো এক অপ্রয়োজনীয় উদ্দেশ্য নিয়েই গুজব ছড়ানো হয় গুজব বিষয়টা আমার কাছে হাস্যকর লাগে এই ভয়াবহ সময়ে কম গুজবই তো আর শুনতে পেলাম না

আজ যখন বিশ্ববাসী হচ্ছে গৃহবন্দী তখন কিছু মানুষ অন্যের সরলতাকে কেন্দ্র করে ঠকাতে ব্যস্ত আর সবচেয়ে অবাক করার কথা হচ্ছে যে আমি নিজেই পরিচিত মানুষদেরকেই এইধরনের গুজব মনে প্রাণে বিশ্বাস করতে দেখেছি অবশ্য এটাও সত্য যে বর্তমান পরিস্থিতি আমাদের সবার কাছে এতটাই ভয়ংকর যার ফলে আমাদের সবার মধ্যে শুধুমাত্র এর থেকে মুক্তির চিন্তা

মানুষ যখন একটি বিষয় নিয়ে গভীরভাবে চিন্তায় মগ্ন থাকে তখন সেই ব্যক্তি বেশির ভাগ সময়েই যেকোনো বিষয় নিয়ে বিবেচনা করার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন কিন্তু সরকার যখন এত প্রচারণা করছেন যেন কেউ গুজবে কান না দেয় তখন সবচেয়ে দুঃখজনক ঘটনা হচ্ছে এই সময়ে অধিকাংশ ব্যক্তিই এই ধরণের ফাঁদে পা দিয়েছেন এবং এখনও দিয়ে চলেছেন

আজগবি এই ধরণের গুজব যা সর্বদাই বিশ্বাসের অযোগ্য এবং যার কোনো বাস্তব ভিত্তিই নেই তাহলে কেন? কেন এই সমাজের অধিকাংশই তা বিশ্বাস করছেন? আসুন আজ সবাই নিজ উদ্যোগেই একটু ভেবে দেখি বিশ্ববাসী যখন আজ করোনা মোকাবেলায় হিমসিম খাচ্ছে তখন কি আপনি এইধরনের আজগবি কর্মকাণ্ড পালন করলেই তা থেকে রক্ষা পেতে সক্ষম হবেন?আমার তো মনে হয় না তা আপনি করতে পারবেন একেই কি তাহলে বোকামি বলে? পরবর্তী প্রজন্ম কি বিশ্ববাসীর নিকট হতে এই ধরণের বোকামি করতে শিখবে?

এটা গুজবে কান দেবার সময় না,এটা নিরাপদে থাকার সময় ধিক্কার জানাই এই ধরণের গুজব রটানোকারী  ব্যক্তিদের যারা মানুষের সরলতা নিয়ে মজা করতে পছন্দ করে তাই আসুন আজ গুজবে কান না দিয়ে সচেতন হই

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ