Translate

বাল্যবিয়ে : কনের বাড়িতে বর নয় গেলেন ইউএনও


বার্তাকক্ষ সিরাজগঞ্জ:

করোনাকালেও দিনের বেলায় চলছিলো বিয়ের প্রস্তুতি। বর বসার মঞ্চসহ চারদিকে প্যান্ডেল তৈরির কাজও শেষ। ভিতরে চলছিলো খাবার তৈরির আয়োজন। কনের বাড়ির সবাই বরের জন্যে অপেক্ষায় ছিলেন। দুপুর পরই তাদের আসার কথা। কিন্তু দুপুর  না হতেই কনের বাড়িতে বর  নয় হাজির হলেন  ইউএনও। আর তাতেই বিয়ের সব আয়োজনে থেমে যায়। জরিমানা গুনতে হয় কনেপক্ষকে। এমন ঘটনাই ঘটেছে সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার সোনামুখী ইউনিয়নের হরিনাথপুর উত্তরপাড়া গ্রামে।

কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় ও স্থানীয়সূত্রে জানা গেছে, হরিনাথপুরের আল আমিন মিয়ার দশম শ্রেণি পড়–য়া মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়েছিলো পাশের ধুনট উপজেলায়। বরের বাড়িও কনের  বাড়ি থেকে মাত্র আধা কিলো দূরে। 

গোপন সূত্রে সংবাদ পেয়ে শুক্রবার(৬ আগস্ট) বেলা বারটায় কনের বাড়িতে টহলরত সেনাবাহিনী ও আনসার সদস্যদের সাথে নিয়ে উপস্থিত হন কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) জাহিদ হাসান সিদ্দিকী। এসময় ইউএনওকে নানাভাবে মিথ্যে তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করে মেয়েপক্ষের লোকজন। কিন্ত প্রস্তুতির ধরণ দেখে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে মেয়ের দাদা ফজলুল হক স্বীকার করেন তার নাতনির বিয়ের আয়োজন চলছিলো। এরপর ইউএনও সেই বিয়ে বন্ধের নির্দেশ দেন এবং কনেপক্ষকে পনের হাজার টাকা জরিমানা করেন। 

 কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ হাসান সিদ্দিকী জানান,  করোনাকালে জনসমাগম করা এবং বাল্যবিয়ে  দুটোই আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। তাৎক্ষণিক কনেপক্ষকে অর্থদন্ড করা হয়েছে এবং বিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ