Translate

সিরাজগঞ্জে জন্মগত বিকলাঙ্গ ও দূর্ঘটনায় অঙ্গবিকৃত শিশুরা ফিরছে স্বাভাবিক জীবনে (ভিডিও সহ)

                                       

মো: আসাদুজ্জামান নাদিম, সিরাজগঞ্জ :

সাড়ে ছয় বছর বয়সী মেয়ে মাইমুনা বছর খানেক আগে রাস্তা পারাপারের সময় যানবাহনের সাথে ধাক্কা লেগে তার মাথা মারাত্মকভাবে আহত হয়। বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিতে থাকলেও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারছিলেন না নাটোরের গুরুদাসপুরের মাইমুনা। তাই চিকিৎসা নিতে মা ও দাদীর সাথে সিরাজগঞ্জে এসেছেন হাঙ্গেরীর এ্যাকশন ফর ডিফেন্সলেস পিপল ফাউন্ডেশনের রিকনস্ট্রাকটিভ অ্যান্ড ল্যাপারস্কোপিক সার্জারি ক্যাম্পেইনে। 

এরকমই আরেকজন অগ্নিদগ্ধ শিশু রাকিব হাসান একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। তিনিও ছোটবেলায় খেলতে গিয়ে আগুনে পুড়ে তার হাত এবং পা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তিনিও ফিরতে পারছিলেন না লেখাপড়া খেলাধুলাসহ স্বাভাবিক জীবনে। মাইমুনা ও রাকিবের মতো নানা বয়সের এমন ৪৫ জন জন্মগত বিকলঙ্গ, এসিড দগ্ধ, আগুনে পোড়া কিংবা সড়ক দূর্ঘটনায় অঙ্গবিকৃত রোগীদের সাভাবিক জীবনে ফেরাতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সিরাজগঞ্জের শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ১২ দিনের ক্যাম্পেইন পরিচালনা করেছেন হাঙ্গেরীর এ্যাকশন ফর ডিফেন্সলেস পিপল ফাউন্ডেশনেরস ১৩ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের একটি দল।

ভিডিও

চিকিৎসা নিতে আসা এসব রোগীর সমাজে স্বাভাবিক চলাচলে ছিলো নানা বিড়ম্বনা। অনেকেই আগুনে, এসিডে ও জন্মগত ত্রুটিতে হারিয়েছেন সোনালী শৈশব। যেতে পারেননি স্কুলে, খেলতে পারেনি সম বয়সীদের সাথে। স্কুলে লেখাপড়া আর খেলাধুলার সাধ থাকলেও তা থেকেছে অধরা। তবে স্বাস্থ্য সুরক্ষা ফাউন্ডেশনের সহযোগীতায় বাংলাদেশ-হাঙ্গেরী ফ্রেন্ডশিপ ফর এভার কর্মসূচী থেকে চিকিৎসা নিয়ে ধীরে ধীরে সুস্থ্য হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে শুরু করেছেন তারা। ব্যয় বহুল এ চিকিৎসা বিনামূল্যে হাতের নাগালে পেয়ে তাই খুশী রোগী ও তার স্বজনেরা।

আর শিশুদেরকেই তারা বেশী প্রাধান্য দিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন হাঙ্গেরিয়ান রিকন্সট্র্যাকটিভ এন্ড লেপারোস্কপিক সার্জিক্যাল টিমের প্রতিনিধি ডা: জর্জলি জল্টান পাটাকি । 

এই শারীরিক বিকলাঙ্গ মানুষদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরাতে হাঙ্গেরীয়ান এই চিকিৎসক দলের পাশাপাশি কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বাংলাদেশি চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরাও । 

স্থানীয় সংসদ সদস্য ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ডা: হাবিবে মিল্লাত জানালেন, ব্যয় বহুল এ চিকিৎসা সিরাজগঞ্জের মানুষের জন্য বিনামূল্যে দিতে পেরে অনন্দিত তিনি। আগামীতেও এমন আরও আয়োজন করতে চায় স্বাস্থ্য সূরক্ষা ফাউন্ডেশন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ