Translate

পাবনায় ১ম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ ৮ম শ্রেণির ছাত্রের বিরুদ্ধে

পাবনা সংবাদাতা : পাবনার চাটমোহরে ১ম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ৮ম শ্রেণির এক ছাত্রের বিরুদ্ধে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্ত ছাত্র ধর্ষণের কথা সত্যতা স্বীকার করলে তাকে আটক করেছে পুলিশ।

জানা যায়, গত ১৫ জুন বিকালে বাড়ির পাশে খেলছিল পাবনা চাটমোহরের কাঠাল বাড়িয়া গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির এক ছাত্রী। এ সময় শিশুটিকে চকলেটের লোভ দেখিয়ে নিজ বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে একই এলাকার ফিরোজ উদ্দিনের ছেলে।

একপর্যায়ে শিশুটি যন্ত্রণায় কান্না শুরু করলে তাকে তার বাড়ির সামনে রেখে পালিয়ে যায় নাছির উদ্দিন। পরবর্তীতে মেয়েটি অসহ্য যন্ত্রণার কথা জানায় তার মাকে। সে রাতেই শিশুটির বাবা ও মা চাটমোহর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। এই ঘটনায় পাবনা চাটমোহর থানাতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে অভিযুক্ত ওই কিশোররের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের হয়।

এদিকে ঘটনার দিন রাতেই ধর্ষণের শিকার শিশুটিকে পাবনা সদরের ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি) তে ভর্তি রাখা হয়। তবে এই ধর্ষণের ঘটনার দীর্ঘ ৭২ ঘণ্টা অতিবাহিত হলেও ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন না হওয়ায় বিচার পাওয়া নিয়ে চিন্তিত ভুক্তভোগীর পরিবার।

ডাক্তারি পরীক্ষার বিলম্ব হওয়ার কারণ হিসেবে পুলিশের দায়িত্বহীনতাকে দায়ী করেছেন হাসপাতালে কর্মরত নার্স। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই রফিক।নিয়মতান্ত্রিকভাবেই সব কিছু করা হয়েছে বলে দাবি এই পুলিশ কর্মকর্তার।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম জানিয়েছেন, অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করা হবে। তদন্তের সময়ক্ষেপণ বা গাফিলতির প্রমাণ পাওয়া গেলে এস আই রফিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ