Translate

সিরাজগঞ্জে এক যুগ ধরে কবরস্থানে বসবাস : ভয়ে ঘুমাতে পারে না শিশুরা (ভিডিও সহ)

সিরাজগঞ্জ থেকে সাদিয়া ঈমাম শৈলী ও আসাদুজ্জামান নাদিম :

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ পৌর এলাকার ক্ষুদ্র বাসুরিয়া গ্রামের মিনা বেগম, প্রতিবন্ধি স্বামী ও তিন সন্তানকে নিয়ে তার অভাবের সংসার। কোন রকমে দিন চললেও একটুকরো জমি কিনে ঘর নির্মানের সামর্থ্য নেই। বাধ্য হয়েই স্বামী-সন্তানদের নিয়ে গ্রামের কবরস্থানের ঝুপড়ি ঘরে বসবাস করছেন প্রায় একযুগ। এইভাবে কবরস্থানে ঘর তুলে শিশু সন্তানদের নিয়ে বসবাস করছেন পাঁচটি পরিবারের অন্তত ২৫ জন মানুষ। 

পাঁচটি পরিবারে ২৫ জন সদস্যের মধ্যে অন্তত ৭ জন শিশু রয়েছে। মৃতদেহের সাথে ভয়-ভীতি উপেক্ষা করেই বসবাস করতে হয় এদের। শেয়ালের ডাক বা সদ্য কবরস্থ কবরের ভয়ে রাতে ঘুমাতে পারে না শিশুরা। ফলে শিশুদের মানসিকতায় বিরুপ প্রভাব পড়ছে। জমি ক্রয়ের সামর্থ না থাকায় তারপরও জীবনযাপনের প্রয়োজনে এভাবেই কাটছে বছরের পর বছর। এই শিশুদের নিরাপদ ও সাভাবিক জিবন যাপনের জন্য অসহায় পরিবারগুলোকে অন্যত্র সরিয়ে নিতে উদ্যোগ গ্রহন করার দাবি পবিবারগুলোর।

   ভিডিও

মানবিক সংগঠন ‘হ্যালো রায়গঞ্জ’ অসহায় পরিবারগুলোকে অন্যত্র সরিয়ে নিতে চেষ্টা করলেও পর্যাপ্ত অর্থ ব্যাবস্থা করতে না পারায় তা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানালেন মেয়র। 

শিশুদের সুরক্ষা ও মানবিক বিবেচনায় অসহায় পরিবারগুলোকে ঘর বরাদ্দ প্রদানের মাধ্যমে অন্যত্র সরিয়ে নিতে উদ্যোগ গ্রহন করা হবে বলে জানালেন উপজেলা চেয়ারম্যান ইমরুল হোসেন তালুকদার ইমন।

কবরস্থানের পবিত্রতা রক্ষা ও পরিবারগুলোর শিশুদের সুরক্ষা, প্রতিবন্ধিসহ সদস্যদের স্বাভাবিক জীবনযাপন নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করবে প্রশাসন এমনটাই প্রত্যশা স্থানীয়দের।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ